মঙ্গলে পরমানু বোমা বিস্ফোরনের পরিকল্পনা

Sep 12, 2015 12:23 pm

 

লালগ্রহ মঙ্গলকে বাসযোগ্য করে তুলতে প্রযুক্তির দুনিয়ায় অন্যতম দিকপাল এলন মাস্ক এক অভিনব পরামর্শ দিয়েছেন। 'স্পেস এক্স' রকেট কোম্পানির স্রষ্টা এলন এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন, মঙ্গল গ্রহকে বাসযোগ্য করে তুলতে গেলে সেটাকে আরও গরম করে তুলতে হবে। মঙ্গলের মাটির কাছাকাছি স্তরের তাপমাত্রা স্বাভাবিক হলে তবেই মানুষের পক্ষে সেখানে বাস করা সম্ভব হবে। আর সেজন্য সেখানে পরমাণু বোমা বিস্ফোরণের পক্ষে সওয়াল করেছেন এলন।


'স্পেস এক্স' রকেট কোম্পানির স্রষ্টা এলন এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন, মঙ্গল গ্রহকে বাসযোগ্য করে তুলতে গেলে সেটাকে আরও গরম করে তুলতে হবে। মঙ্গলের মাটির কাছাকাছি স্তরের তাপমাত্রা স্বাভাবিক হলে তবেই মানুষের পক্ষে সেখানে বাস করা সম্ভব হবে। আর সেজন্য সেখানে পরমাণু বোমা বিস্ফোরণের পক্ষে সওয়াল করেছেন এলন। এলেনের মতে, খুব তাড়াতাড়ি মঙ্গলের আবহাওয়াকে গরম করে তা বাসযোগ্য করে তুলতে চাইলে পরমাণু বোমা ফাটানোই একমাত্র উপায়। এসব শুনে কি বলছে বিজ্ঞানী মহল?

কলোরাডো বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানী ব্রায়ান টুন জানিয়েছেন, মঙ্গলকে পৃথিবীর মতো করে তোলা সম্ভব। তবে তার জন্য অনেক বাধা পেরতে হবে। বোমা ফেলে তা করার ভাবনা মোটেও ভালো নয়। মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা জানিয়েছে, মহাকাশে বিশেষ করে সৌর জগতে নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষায় আমরাও বিশ্বাসী। তবে পরমাণু বোমার নিজস্ব কিছু ঝক্কি রয়েছে। তা কীরকম? পেনসিলভেনিয়া স্টেট বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান বিভাগের ডিরেক্টর মাইকেল মন জানিয়েছেন, পরমাণু বোমা বিস্ফোরণ করলে তার নিজস্ব সমস্যা তৈরি হতে পারে। মঙ্গলের আবহাওয়া গরম হওয়ার বদলে ঠান্ডা হয়ে যেতে পারে।

কারণ বিস্ফোরণের পরে সেখানকার আকাশ ধুলো ও ধোঁয়ায় ঢেকে যাবে। ফলে সূর্যের আলো মাটি পর্যন্ত পৌঁছতে পারবে না। এবং সেজন্য গরম হওয়ার চেয়ে আরও বেশি ঠান্ডা হয়ে যেতে পারে লালগ্রহ। যাকে বিজ্ঞানের ভাষায় বলে 'নিউক্লিয়ার উইন্টার'। এই প্রেক্ষিতে মঙ্গলে কীভাবে পরমাণু বোমা নিয়ে পৌঁছনো সম্ভব হবে সে ব্য়াপারে অবশ্যও এখনও কিছু জানাতে পারেননি এলন মাস্ক। তাই মঙ্গল নিয়ে সব মহলের গবেষণা জারি রয়েছে এবং আপাতত তা থাকবে।


এলেনের মতে, খুব তাড়াতাড়ি মঙ্গলের আবহাওয়াকে গরম করে তা বাসযোগ্য করে তুলতে চাইলে পরমাণু বোমা ফাটানোই একমাত্র উপায়। এসব শুনে কি বলছে বিজ্ঞানী মহল? কলোরাডো বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানী ব্রায়ান টুন জানিয়েছেন, মঙ্গলকে পৃথিবীর মতো করে তোলা সম্ভব। তবে তার জন্য অনেক বাধা পেরতে হবে। বোমা ফেলে তা করার ভাবনা মোটেও ভালো নয়। মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা জানিয়েছে, মহাকাশে বিশেষ করে সৌর জগতে নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষায় আমরাও বিশ্বাসী। তবে পরমাণু বোমার নিজস্ব কিছু ঝক্কি রয়েছে। তা কীরকম?

পেনসিলভেনিয়া স্টেট বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান বিভাগের ডিরেক্টর মাইকেল মন জানিয়েছেন, পরমাণু বোমা বিস্ফোরণ করলে তার নিজস্ব সমস্যা তৈরি হতে পারে। মঙ্গলের আবহাওয়া গরম হওয়ার বদলে ঠান্ডা হয়ে যেতে পারে। কারণ বিস্ফোরণের পরে সেখানকার আকাশ ধুলো ও ধোঁয়ায় ঢেকে যাবে। ফলে সূর্যের আলো মাটি পর্যন্ত পৌঁছতে পারবে না। এবং সেজন্য গরম হওয়ার চেয়ে আরও বেশি ঠান্ডা হয়ে যেতে পারে লালগ্রহ। যাকে বিজ্ঞানের ভাষায় বলে 'নিউক্লিয়ার উইন্টার'।

এই প্রেক্ষিতে মঙ্গলে কীভাবে পরমাণু বোমা নিয়ে পৌঁছনো সম্ভব হবে সে ব্যাপারে অবশ্যও এখনও কিছু জানাতে পারেননি এলন মাস্ক। তাই মঙ্গল নিয়ে সব মহলের গবেষণা জারি রয়েছে এবং আপাতত তা থাকবে।